দিনলিপি 

বছরপারের কথকতা

সর্বশেষ আপডেটঃ

পড়তে সময় লাগবে: 2 মিনিট

কিছু কিছু মানুষের ‘হিউমার’ শেষ হবার নয়। তারা যন্ত্রণার মধ্যেও আনন্দ খুঁজে পান, শোকের মধ্যেও সুখ। মৃত্যুদিনে মৃতের ছবির সাথে হাসিমুখের সেলফি দর্শন সামাজিকমাধ্যম আমাদের অভ্যস্ত করে তুলেছে। শোক ভুলে আনন্দে ভাসার আহ্বান তাই বছর শেষে ঘুরেফিরে পাচ্ছি এবং পাচ্ছেন।

ব্যক্তিগত ভাবে ২০১৯ এর মত ভয়ংকর বছর আমার জীবনে আর নেই। একজন পিতা যখন তার পুত্র হারান সেই পিতার চেয়ে নিঃস্ব, যন্ত্রণাকাতর আর কেউ হতে পারে না। আমি তেমনি একজন। তাই আমার ব্যক্তিগত কারণে সবাইকে দুঃখী হতে বলছি না। তবে সদ্য বিগত সনটি সার্বিকভাবে কার জন্যে ভালো গেছে সেটাই জানতে ইচ্ছে করে। ভয়ংকর সব ঘটনার মধ্যে দিয়ে বছরটি পার হয়েছে।

শুধু আমাদের দেশই নয়, দক্ষিণ এশিয়াও আক্রান্ত হয়েছে নানা ঘটনায়। ভারতের এনআরসি, সিএবি বিলের রেশ টানতে হবে নতুন বছরকেও। যার বাইরে আমরাও নই। আমাদের নিজ অর্থনীতিও বিপর্যস্ত। একমাত্র রেমিট্যান্স ছাড়া কোথাও কোনো আশার আলো নেই। প্রতিটি ক্ষেত্রই বিধ্বস্ত প্রায়। অর্থনীতিবিদরা বারবার আশংকা প্রকাশ করেছেন বছরটিতে। রাজনীতির কথা বলতে গেলে গুনগুন করে গাইতে হয়, ‘আমার বলার কিছু ছিলো না, চেয়ে চেয়ে দেখলাম’।

বছর জুড়ে আলোচিত ছিলো দুর্নীতি। একজন বলেছিলেন, ‘দুর্নীতির মধ্যেও নীতি শব্দটি রয়েছে। তবে এবারের দুর্নীতি শব্দটি নতুন বানানে লিখতে হবে, এ দুর্নীতিতে নীতিও নেই।’ কথা মিথ্যে নয়। কোন অফিস পিয়ন যখন শতকোটি টাকার মালিক হয়ে উঠে তখন তা নীতি বিবর্জিত দুর্নীতিই হয়।

বলতে পারেন দুর্নীতি কোথায় হয় না। হয়, সবজায়গাতেই হয়। জাপানের প্রধানমন্ত্রীও দুর্নীতির দায় মাথায় নিয়ে পদত্যাগ করেন। কথাটা এইখানেই তারা ‘পদত্যাগ’ করেন। তাদের দুর্নীতির মধ্যেও নীতি থাকে। বালিশকান্ড, পর্দাকান্ড, পুকুরকাটাকান্ড, বাল্বকান্ড, পেঁয়াজকান্ড এমন কান্ডের অভাব নেই। এরমধ্যে যোগ হয়েছে বিদেশযাত্রাকান্ড। পুকুরকাটা দেখতে বিদেশযাত্রা, আলুচাষ দেখতে বিদেশ যাত্রা, সেলাই শিখতে বিদেশযাত্রাসহ যাত্রার শেষ নেই।

এমনটাই হলো আর ছিলো আমাদের বছরচিত্র। কেউই এমন বছরে বাস্তবিক অর্থে সুখী থাকতে পারেন না। তবুও থাকেন অনেকেই। সেইসব মানুষের কথা বলছি না, যাদের জন্য বা যাদের দ্বারা সকল নীতিহীনতা। তারা ছাড়াও কিছু মানুষ অকারণ সুখী থাকেন। হাসিমুখে বলেন, ‘ঘুচে যাক জরা অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা’ টাইপ আনন্দিত কবিতার স্তব!

সুখ যে একক কোনো বিষয় নয়, এই বোধটা এমনসব মানুষেরা হারাতে বসেছেন। নিজের আশপাশের সবাইকে নিয়ে সুখী হতে হয়, সবার হাসিমুখের সাথে নিজের মুখটা মেলাতে হয়, এমন ভাবনাটা ক্রমেই বিস্মৃত হতে বসেছে। যারা একা একা সুখী হতে চান তারা মূলত আত্মকেন্দ্রিকতায় ভোগেন। এই আত্মকেন্দ্রিকতা আত্মঘাতী।

লেখক : সাংবাদিক ও কলাম লেখক।

আরও পড়ুনঃ

Leave a Comment